গল্পের সময়,জুলাই-অগস্ট ২০১৯।।শ্রাবণ-ভাদ্র ১৪২৬


বাঙালি গল্প শুনতে ভালোবাসে, বাঙালি গল্প শোনাতেও ভালোবাসে। তিন বাঙালি এক জায়গায় হয়েছে আর সব কাজকর্ম শিকেয় তুলে ঘণ্টা খানেক জমিয়ে গল্প-গুজব করে নি এমন ঘটনা একসময় ছিল দুর্লভ ব্যাপার। মজলিসে বসে জামার পকেট বা আস্তিন একটু ঝাড়াঝাড়ি করলে দু-একটি কাহিনী বা কিস্‌সা টুক করে ঝরে পড়তই। আড্ডাবাজ বাঙালির সেই কৌলিন্যে আজ ভাঁটার টান। আন্তর্জাতিক স্পেস অ্যান্ড টাইম মাথায় রেখে ছুটছে সে। শপিং জোন থেকে স্মার্ট ফোন, ল্যাপটপ সার্ফিং থেকে রুফটপ ওয়াকিং – সবেতেই এখন স্বচ্ছন্দ বাঙালি। শুধু মাঝখান থেকে উধাও আড্ডা। ব্যস্ত বাঙালির এক চিলতে অবসরে উঁকি মেরে আমরা বলতে চাই – তুমিও গল্প বলো। গল্পের সময় হয়ে উঠতে চায় -- গোটা বিশ্বের বাঙালির গল্পের উঠোন।

অবসর

লিখেছেন:অনিলেশ গোস্বামী

বালিগঞ্জ সারকুলার রোডের ওপর তিনহাজার স্কোয়ার ফিটের সুসজ্জিত আধুনিক ফ্ল্যাট । পাঁচতলায় । মধ্যিখানে বিশাল মাপের ড্রয়িংরুমে র একটি কোণে নিজের পছন্দের সোফাটায় সন্ধেবেলায় চুপ করে বসে আছেন মিত্রসাহেব । অরিন্দম মিত্র । বেঙ্গল এ্যালুমিনিয়াম ইন্ডাস্ট্রির দোর্দন্ডপ্রতাপ চেয়ারম্যান-কাম-ম্যানেজিং ডিরেক্টর । এককথায় সিএমডি । দীর্ঘ কর্মজীবনের প্রান্তে আজই অফিসে তাঁর ফেয়ারওয়েল হয়ে গেলো খুব ঘরোয়া পরিবেশে। […]

বাকিটা পড়ুন...

প্রাতভ্রমণ

লিখেছেন:সুদর্শন ব্রহ্মচারী

পথে নামলেই নতুন কিছু দেখি । হাঁটতে হাঁটতে কুলিকের দিকে যাচ্ছি । অর্জুন, কদম, জারুল, হিজলের ফাঁকে ফাঁকে হাঁটি । বসতির পরে খেলার মাঠ ; তারপর ফাঁকা মাঠ । রাস্তাটা উত্তর দিকে যেতে যেতে হঠাত পশ্চিম দিকে ঘুরে গেছে । বাঁদিকে বাবলা, শিরিষ অর্জুনের ছায়ায় ছোট্ট দীঘি শুয়ে আছে । ডানদিকের মাঠ আলে আলে ভাগ […]

বাকিটা পড়ুন...

একটি গল্পের অপমৃত্যু!

লিখেছেন:অঞ্জন আচার্য

নিতান্ত সুখী একটা সমাপ্তি ঘটতে পারত আমার জীবনে। যেমনটা ঘটে রূপকথার গল্পে : ‘অবশেষে রাজা-রানি সুখে-শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিলো’। কিন্তু বিধি বাম। সেই কপাল নিয়েই জন্মাইনি যে! আমি বড় কপালে বিশ্বাসী মেয়ে। কিংবা বলা যায়, ওই সুখী পরিণতি কি আমি আদৌ চেয়েছি কখনো? আর সবার মতোই আমার বেড়ে ওঠা। টানাপড়েন সংসারের মধ্যবিত্ত ঘরের সাদামাটা জীবন […]

বাকিটা পড়ুন...

রক্ষাকবচ

লিখেছেন:সুদীপ ঘোষাল

রাজু  বামুন পাড়ার ছেলে। পৈতে হয়েছে বৈশাখ মাসে। উপনয়নের পর উপবীত ধারণ করতে হয়। এই উপবীতের চলতি নাম পৈতে। পৈতে কথাটি সমাজে বহুপ্রচলিত।   বাহুতে গুরুদেব বেঁধে দিয়েছেন কবচ। রাজুদের বংশের গুরুদেব বলেছেন, সমস্ত বিপদ আপদ থেকে রক্ষা করবে এই কবচ আর পৈতে।  সব কাজে সফল হবে নিশ্চিতভাবে আর সারাজীবন রক্ষাকবচের মত আগলে রাখবে জীবন। […]

বাকিটা পড়ুন...

গল্পের সময় উৎসব সংখ্যা

লিখেছেন:আপনারাই,লেখা পাঠান

[প্রতিটি মানুষই কিছু বলতে চান। পৃথিবীর আবহমান হাসি–কান্না, দুঃখ–কষ্ট, আনন্দ  উল্লাসে  দোদুল্যমান প্রতিটি মানুষের বুকের ভেতর  জমাট হয়ে বসে থাকে না বলা হাজারো   কাহিনী বা কিস্‌সা। কেউ কেউ শুধু নিজেরই নয়, অন্যের জীবনের নানা ঘটনার উপাদান সংগ্রহ করেও  করেন কাহিনীর নির্মান। গল্পেরা তাদের ডাকে, তাদের সঙ্গে ঘর করে।  বিকেল বেলায় বেড়াতে  গেলে পিছনে ছায়ার মত লেপটে   থাকে।  তিনি তখন গল্প তাড়িত? তিনি বুকের মধ্যে প্রতিনিয়ত বয়ে  নিয়ে চলেছেন এক বা একাধিক কাহিনী। অক্ষরমালায়  সাজিয়ে তোলা সেইসব   গল্প নিয়েই সেজে উঠছে আমাদের উৎসব সংখ্যা। ]  লেখা পাঠানোর নিয়ম ১। সকলেই গল্প পাঠাতে পারেন। ভাল গল্প প্রকাশ করাই আমাদের উদ্দেশ্য। ২। লেখা অভ্র তে বাংলা টাইপ করে ওয়ার্ড-এ পাঠান। পিডিএফ করে পাঠাবেন না।    লেখার শব্দসংখ্যা নির্দিষ্ট নেই।তবে ১৫০০ শব্দের মধ্যে […]

বাকিটা পড়ুন...

খাঁচা

লিখেছেন:দেবাশিস সাহা

অনেকদিন ধরেই হাতে লেখা আসছে না নিখিলের। রোজই লিখব লিখব ভাবে কিন্তু যখনই একটু সময় বের করে মনের ভাব কলমের আঁচড়ে বাঁধবার চেষ্টা করে, সেই প্রচেষ্টা ডায়েরীর পাতা অবধি পৌঁছনোর আগেই হাজারো ব্যাস্ততার শাসন তার শিল্পীসত্তাকে দমিয়ে দেয়। চিফ এডিটর মিত্রদা রোজ একবার করে ফোন করে- নিখিল, এবারের সংখ্যায় একটা লেখা দাও। তুমি তো রোম্যান্টিক […]

বাকিটা পড়ুন...

আমার ঠাম্মা আর একটি নটেগাছের গল্প

লিখেছেন:তপন মোদক

নিকানো উঠানে বসে আছে শতায়ুর প্রতীক্ষায় আমার ঠাম্মা । আমি তাকে এখনো বেশ দেখতে পাই । তার সাদা চুলে রাজঁহাসের শুভ্রতা । দাঁতহীন মাড়ি বার করে হাসলে সুখ ঝরে ঝরে পড়ত । আমাদের পরিবারের মুখ ছিল এই ঠাম্মা । তাকে ভাঙ্গিয়ে আমার দুষ্টুমি আর অবিবেচনা ক্ষমা পেয়ে যেত প্রায়ই । এই মানুষটাকে খুঁড়ে দেখার ইচ্ছা […]

বাকিটা পড়ুন...

সরস্বতীর ‘স্টেনোগ্রাফার’

লিখেছেন:অরিন্দম

ঠাকুরমা বলতেন, ‘মেয়েদের লেখাপড়া শেখা মানেই হাল ফ্যাশানি হয়ে ব্যাটাছেলেদের সঙ্গে মুরুব্বি মেরে কাপ্তানি করা।’ যৌথ পরিবারে প্রথম শৈশবে এই আপ্তবাক্যই শুনেছেন তিনি। বাড়ির ছেলেদের স্কুলে যাওয়ার পাট থাকলেও ঘরকন্নার বাইরে মেয়েদেরও যে একখানা নিরালা জগৎ থাকা দরকার এমনটা মানতেন না হরেন্দ্রনাথ গুপ্তের মা। হরেন্দ্রনাথ ছিলেন শিল্পী। তখনকার বিখ্যাত সি ল্যাজারাস কোম্পানির ডিজাইনারের চাকরির পাশাপাশি […]

বাকিটা পড়ুন...

মতিলালের মতিভ্রম

লিখেছেন:পূষন

১) ভাষা দেখিয়া বিষম খাইবেন না যেন। যে কাহিনী বলিতে যাইতেছি তাহার পরিপূর্ণ উপস্থাপন এবং যথার্থ রসাস্বাদন মনে করি এইরূপ ভাষাভঙ্গিই দাবী করিয়া থাকে। গৌরচন্দ্রিকা সংক্ষিপ্ত করিয়া মূল বক্তব্যে আসি। কাহিনী বেশ দীর্ঘ। কয়েকদিন পূর্বের কথা। আমাদের আখ্যানের পার্শ্বনায়ক মতিলালের সেইদিন বাস্তবিক মতিভ্রম হইয়াছিল। তাহার বয়স স্বল্প, ত্রিশ স্পর্শ করিতে বিলম্ব আছে। তথাপি তাহার সাময়িক […]

বাকিটা পড়ুন...

যাপনের জীবন যাত্রা

লিখেছেন:ঋভু চট্টোপাধ্যায়

-তুমি আজ কিন্তু সন্ধেবেলায় বেরোবে না বাবা, আমাকে লগের প্রবলেম গুলো আরেকবার বোঝাতে হবে।কত দিন ধরে আমি বলে যাচ্ছি আর তুমি আজ নয়, কাল নয় পরশু নয় করে যাচ্ছ।ছোট বেলায় কি সুন্দর পড়াতে, এখন এক্কেবারে পড়াচ্ছ না।শুধু ফাঁকি দিচ্ছ । বাইরে এইমাত্র সন্ধেটা টলটল করে নামল,কয়েকটা পাখির কিচির মিচির শব্দ জানলা ভেদ করে ড্রয়িং রুম […]

বাকিটা পড়ুন...

আসছে উৎসব সংখ্যা

লিখেছেন:আপনারাই, লেখা পাঠান

[প্রতিটি মানুষই কিছু বলতে চান। পৃথিবীর আবহমান হাসি–কান্না, দুঃখ–কষ্ট, আনন্দ  উল্লাসে  দোদুল্যমান প্রতিটি মানুষের বুকের ভেতর  জমাট হয়ে বসে থাকে না বলা হাজারো   কাহিনী বা কিস্‌সা। কেউ কেউ শুধু নিজেরই নয়, অন্যের জীবনের নানা ঘটনার উপাদান সংগ্রহ করেও  করেন কাহিনীর নির্মান। গল্পেরা তাদের ডাকে, তাদের সঙ্গে ঘর করে।  বিকেল বেলায় বেড়াতে  গেলে পিছনে ছায়ার মত লেপটে   থাকে।  তিনি তখন গল্প তাড়িত? তিনি বুকের মধ্যে প্রতিনিয়ত বয়ে  নিয়ে চলেছেন এক বা একাধিক কাহিনী। অক্ষরমালায়  সাজিয়ে তোলা সেইসব   গল্প নিয়েই সেজে উঠছে আমাদের উৎসব সংখ্যা। ]  লেখা পাঠানোর নিয়ম ১। সকলেই গল্প পাঠাতে পারেন। ভাল গল্প প্রকাশ করাই আমাদের উদ্দেশ্য। ২। লেখা অভ্র তে বাংলা টাইপ করে ওয়ার্ড-এ পাঠান। পিডিএফ করে পাঠাবেন না।    লেখার শব্দসংখ্যা নির্দিষ্ট নেই।তবে ১৫০০ শব্দের মধ্যে […]

বাকিটা পড়ুন...

মুদ্রারাক্ষস রহস্য

লিখেছেন:পবিত্র চক্রবর্তী

১ ভদ্রলোককে দেখে বঙ্গবাসী মনে হওয়ার কোন কারণই নেই । তবে কষের দুই কোণায় ঈষৎ কমলা পানের পিকের দাগ আর কথায় কথায় জয় জগন্নাথ শুনে এক সময় যখন টুটুন ধরেই নিয়েছিল আগত ব্যাক্তি ওড়িয়া । ঠিক তখনই কাঠ বাঙাল ভাষা , “ ছ্যার আমাগো ক্লাবের বয়স হইল গিয়া ত্রিশ , আমরা হক্কলে মিলে ঠিক করেছি […]

বাকিটা পড়ুন...

সব সময় গল্পের সময়

লিখেছেন:গল্পের সময়

বাঙালি গল্প শুনতে ভালোবাসে, বাঙালি গল্প শোনাতেও ভালোবাসে। তিন বাঙালি এক জায়গায় হয়েছে আর সব কাজকর্ম শিকেয় তুলে ঘণ্টা খানেক জমিয়ে গল্প-গুজব করে নি এমন ঘটনা একসময় ছিল দুর্লভ ব্যাপার। মজলিসে বসে জামার পকেট বা আস্তিন একটু ঝাড়াঝাড়ি করলে দু-একটি কাহিনী বা কিস্‌সা টুক করে ঝরে পড়তই। আড্ডাবাজ বাঙালির সেই কৌলিন্যে আজ ভাঁটার টান। আন্তর্জাতিক […]

বাকিটা পড়ুন...

তুমিও গল্প বলো

লিখেছেন:গল্পের সময়

  একটা ভালো গল্পের জন্ম হয় কিন্তু তার মৃত্যু নেই,এমনটাই বিশ্বাস আমাদের। একটা ভালো গল্প একজন পাঠকের বুকের ভেতর বেঁচে থাকে চিরকাল। সেই পাঠকের হাত ধরেই তা পৌঁছে যায় পরবর্তী প্রজন্মের কাছে। এমনভাবেই তো হাজার বছর আগের গল্প আজও শুনে চলেছি আমরা। আমরা চাই একটা ভালো গল্প উন্মুক্ত হোক বহু পাঠকের কাছে। গভীর যত্নে, মমতায় […]

বাকিটা পড়ুন...

বিজ্ঞাপনের জন্য ‘গল্পের সময়’

লিখেছেন:গল্পের সময়

  আপনি কী ব্যবসায়ী ? আপনি কী একজন প্রকাশক? আপনি কী লেখক, কবি বা সম্পাদক।আপনি কী প্রকাশকের দরজায় না ঘুরে বুক ঠুকে সেলফ পাবলিশিং-এ ড্রাইভ মেরেছেন। তাহলে আপনার মূল্যবান কাজ বা পণ্যের বিজ্ঞাপনের জন্য  ভাবুন ‘গল্পের সময়’-এর কথা।অতি কম খরচে আপনার বিজ্ঞাপন হাজার হাজার  নির্দিষ্ট পাঠকের কাছে পৌঁছে দেবে আমাদের এই ই-ম্যাগাজিন।   ‘গল্পের সময়’ […]

বাকিটা পড়ুন...

গল্পের সময়,স্মৃতি সোপান,ভিন্নতর আলাপ



দয়াময়ীর কথা

ইস্কুলের ক্ষুদিরাম বা ক্ষুদিরামের ইস্কুল

ওল্ড ইজ নট গোল্ড



গল্পের সময় বিজ্ঞাপন


বাংলার হাজার হাজার পত্র-পত্রিকার মত ‘গল্পের সময়’ও একটি লিট্‌ল ম্যাগাজিন। কাগজ ও কালিতে ছাপার বদলে এর বিচরণ অর্ন্তজালে,পার্থক্যটা এখানেই। অনান্য লিট্‌ল ম্যাগাজিনের মতই বেঁচে থাকতে,পথ চলার রসদ জোগাতে বিজ্ঞাপন গ্রহন করবে গল্পের সময়। তবে সচেতনভাবে লোক ঠকানো কোনও বিজ্ঞাপন প্রকাশ করা হবে না এই পত্রিকার পাতায়।

ভাল গল্পের ডালি নিয়ে অর্ন্তজালে ভেসে ভেসে বহু মানুষের কাছে পৌঁছোতে চায় ‘গল্পের সময়’। আমাদের সঙ্গী হয়ে আপনার প্রতিষ্ঠান, প্রকাশন সংস্থা, ব্যক্তিগত বই বা অন্য কোনও উদ্যোগের বিজ্ঞাপন অনেকের কাছে পৌঁছে দিতে পারেন আপনি। বাণিজ্যিক প্রকাশন সংস্থার মিনিট সেকেন্ডের টাইমফ্রেম বা স্কোয়ার-সেন্টিমিটারের চোখরাঙানি নেই। গোটা মাস/বছর ধরে ২৪X৭ লাইভ রাখুন আপনার বিজ্ঞাপন।

আকাশছোঁয়া মূল্য নয়, নামমাত্র খরচে বিজ্ঞাপন দেওয়ার সুযোগ থাকছে গল্পের সময়ে। বিজ্ঞাপন দিন সরাসরি ওয়েব লিঙ্ক অথবা তৈরি পেজ-এর মাধ্যমে। আরও বিস্তারিত জানতে চলে আসুন আমাদের বিজ্ঞাপনের পাতায়। প্রয়োজনে মেইল করুন galpersamay@gmail.com এ।

বিজ্ঞাপন



গল্পের সময়/ বিশেষ পাঠ



অন্য ধারার গল্প

বাংলা সাহিত্যে সমকামিতা

আদর্শ বাংলা বানানঃ একটি প্রস্তাবনা




গল্পের সময়/আলাপন পর্ব



ভগীরথ মিশ্র’র লেখালিখি

ইসমত চুঘতাই সম্পর্কে মান্টো

সন্দীপন চট্টোপাধ্যায়ের সাক্ষাৎকার

ডোন্ট পারসিউ থিংস,লেট দেম পারসিউ ইউ- রাস্কিন বন্ড

 

লেখা আসে নিঃসঙ্গতার গর্ভ থেকে – মনোজ দাস

উপযুক্ত সম্মান নেই অলংকরণ শিল্পীর : যুধাজিৎ সেনগুপ্ত

শিশু সাহিত্য প্রায় লেখা হচ্ছে না – ষষ্ঠীপদ

বাংলা সাহিত্যে আমি বেঁচে আছি আমার মত করে – কিন্নর রায়

 

Twitter

Facebook

Google

যোগাযোগ


email:galpersamay@gmail.com

Your message has been sent. Thank you!

গল্পের সময় পরিবার
সমীর
অগ্নীশ্বর
দেবাশিস
চিন্ময়
পার্থ
মিতালি
জাগরণ
দেবব্রত

© 2016 গল্পের সময়। ডিজাইন করেছেন অগ্নীশ্বর। নামাঙ্কন করেছেন পার্থ