15 Apr

এমনিই

লিখেছেন:দেবাশিস সাহা


||  ১  ||

সাবওয়ে  দিয়ে  চিরকালের  অভ্যাসের  মতো  দুটো  করে  সিঁড়ি  টপকে  টপকে  প্লাটফর্মে  উঠে  একটা  ফাঁকা  জায়গা  পেয়ে  বসে  হাঁফাতে  লাগলো  শুভ  |  রবিবার  সকালে  ঘুমটা  যেন  ভাঙতেই  চায়  না  |  অগত্যা  এই  তাড়াহুড়ো  !

নাহ্ !  লেট  হয়  নি    |  সাড়ে  দশটার  গ্যালোপিং  বর্ধমানটা  পেয়ে  যাবো  |  –  ভাবতে  ভাবতে  চশমাটা  খুলে  নিয়ে  রুমাল  দিয়ে  মুছতে  লাগলো  সে  |  আপ  বর্ধমান  গ্যালোপিং  লোকালটাও  তখনি  অ্যানাউন্স  করলো  |

আচ্ছা এটা  কি  বৈদ্যবাটি  দাঁড়াবে  ?  –  পাশে  বসে  থাকা  একটি  মেয়ের  কণ্ঠস্বর  কানে  ভেসে  এলো  শুভর    |  চশমাটা  চোখে  পরে  মেয়েটির  দিকে  তাকিয়ে  বলল  –

বৈদ্যবাটি ?    সিওর  কিনা  জানি  না  |  আপনি  একবার  জিজ্ঞেস  করে  উঠবেন  |

ওহ আচ্ছা  |  এরপর  ব্যান্ডেল  কটায়  আছে  ?

ব্যান্ডেল এটার  মিনিট  পাঁচেক  পরেই  |

ওহ, তাহলে  ওটায়  যাওয়াই  ভালো  |  পাঁচ  মিনিটের  ব্যাপার  যখন  |

তাড়া থাকলে  জিজ্ঞেস  করে  উঠে  যেতেই  পারেন  |

না, অ্যাকচুয়ালি  আমি  একা  খুব  একটা  ট্রাভেল  করি  না  তো  !  তাই  আর  কি  |

একটু  থেমে  মেয়েটি  বলে  উঠল  –

-তুমি  কোথায়  যাবে  ?

এতক্ষন  ঠিক  মতো  খেয়াল  করে  নি  তবে  এবার  মেয়েটির  গলায়  যেন  একটা  অদ্ভুত  অসহায়তার  সুর  খুঁজে  পেলো  শুভ |  অনভ্যস্ত  মানুষ  একা  যাতায়াত  করলে  যা  হয়  |  অল্প  নার্ভাস  তো  হওয়া  স্বাভাবিক  |  শুভ  উত্তরে  বললো    –

আমি, চুঁচুড়া  |

ইতিমধ্যে  ট্রেনটা  প্লাটফর্মে  ঢুকে  পড়েছে  |  শুভ  উঠে  এগিয়ে  গেলো  |  পিছন  ফিরে  দেখলো  না  তবু  কি  একটা  চিন্তা  ওর  মাথায়  ঘুরপাক  খেতে  লাগলো  |  যেন  কোনো  একটা  দোটানা  তাকে  পিছু  টানছিলো  |  ট্রেনটা  গতি  থামিয়ে  দাঁড়াতেই  জানালার  ধারে  বসে  থাকা  একজন  লোককে  শুভ  জিজ্ঞেস  করলো  –

দাদা এটা  বৈদ্যবাটি  থামবে  ?

হ্যা থামবে  |  –  বললেন  ভদ্রলোক  |

শুভ  একবার  কি  যেন  ভাবলো  |  তারপর  উঠে  পড়লো  |

উঠবার  পর  থেকেই  মুহূর্তের  মধ্যে  শুভর  মনটা  আবার  খচখচ  করতে  লাগলো  |  ট্রেনটা  ছাড়তেই  যাবে,  নেমে  পড়লো  সে  |  আস্তে  আস্তে  গতি  বাড়িয়ে  প্লাটফর্ম  ছেড়ে  বেরিয়ে  গেলো  ট্রেনটা  |  কিছুটা  এগিয়ে  এসে  দেখলো  মেয়েটি  তখনো  ওখানেই  গালে  হাত  দিয়ে  বসে  রয়েছে  |  শুভ  বলে  উঠল  –

হাই !

হাই !  কি  হলো  তুমি  গেলে  না  ?

কি  বলবে  ভেবে  না  পেয়ে  শুভ  বলল  –

সোজা ব্যান্ডেল,  নেক্সট  স্টপ  |

আচ্ছা |

শুভ  বসলো  আবার  |  বলল  –

বৈদ্যবাটিতেই বাড়ি  নাকি  তোমার  ?

না না!  আসলে  একটা  এন্ট্রান্স  এক্সাম  এর  সিট  পড়েছে  |

আচ্ছা |

বাবার সাথেই  যেতাম  |  কিন্তু  কাল  রাত  থেকে  বাবার  আবার  হাই  ফিভার  |  মাকে  দেখভাল  করতে  হচ্ছে  |  তাই  আমাকে  একাই  বেরোতে  হলো  আর  কি  |  তাড়াহুড়োতে  মোবাইলটাও  ফেলে  এসেছি  !

ঠিক আছে,  ডোন্ট  ওরি  |

তুমি চুঁচুড়ায়  কোথায়  যাচ্ছ  ?

এভাবেই  কথাবার্তা  চলতে  লাগল  |  মেয়েটি  জানালো  যে  সে  কলেজে  ভর্তির  পরীক্ষা  দিতে  যাচ্ছে  |  শুভও  জানালো  যে  গত  বছরই  এম.  এ  কমপ্লিট  হয়েছে  তার  |  চুঁচুড়া  যাচ্ছে  টিউশন  পড়াতে  |  কয়েক  মিনিটের  মধ্যেই  একেবারে  অচেনা  থেকে  আচমকাই  ভীষণ  রকম  পরিচিত  হয়ে  গেলো  দুজন  !

যথা  সময়ে  ব্যান্ডেল  লোকালটা  এলো  |  উঠে  পড়লো  ওরা  |  এটা  –  ওটা  গল্প  করতে  করতে  সময়  যে  কিভাবে  কেটে  গেলো  বোঝাই  গেলো  না  |  এক  সময়  শুভ  বলল  –

ব্যাস এরপরেই  বৈদ্যবাটি  |  এক  নম্বর  প্লাটফর্ম  দিয়ে  নেমে  অটো  –  টোটো  যা  হোক  কিছু  একটা  পেয়ে  যাবে  |

মেয়েটি  হঠাৎ  করে  এমন  একজন  কাউকে  পেয়ে  যাবে  যে  তার  এই  একাকী  যাত্রার ভয়  ও  দুশ্চিন্তা  মুহূর্তের  মধ্যে  দূর  করে  দেবে  ভাবতেই  পারে  নি  |  কৃতজ্ঞতার  সুরে  সে  বলে  উঠল  –

থ্যাঙ্কস !

বাবা !  এতে  আবার  থ্যাঙ্কস  কেন  ?  –  অল্প  হেসে  শুভ  বললো  |

কিছুক্ষন  শুভর  দিকে  একদৃষ্টিতে  চেয়ে  থেকে  মেয়েটি  বললো  –

না কিছু  না,  এমনিই  !

স্টেশন  এলো  |  নেমে  পড়লো  মেয়েটি  |  হুড়মুড়িয়ে  লোক  উঠলো  কামড়াটায়  |  মানুষের  ভিড়ে  মেয়েটি  কখন  যে  চোখের  আড়াল  হয়ে  গেলো  বুঝতে  পারলো  না  শুভ  |

||  ২  ||

মাঝখানে  একটা  মাস  কেটে  গেছে  |  সেদিনটাও  রবিবার  ছিল  |  সময়টাও  সাড়ে  দশটা  |  আপ  গ্যালোপিং  বর্ধমান  লোকাল  থেকে  নামলো  শুভ  |

আচ্ছা এটা  কি  বৈদ্যবাটি  দাঁড়াবে  ?

হ্যা দাঁড়াবে  |  –  মোবাইলে  কি  একটা  দেখতে  দেখতে  মুখের  দিকে  না  তাকিয়েই  বলে  চলে  যাচ্ছিল  শুভ  |  চকিতেই  কণ্ঠস্বরটি  খুব  চেনা  চেনা  ঠেকলো  |  পিছন  ফিরে  চাইতেই  থমকে  দাঁড়িয়ে  গেল  সে  |

চিনতে পারছ  না  ?

হ্যা সরি,  খেয়াল  করি  নি  একদম  |  কেমন  আছো  ?  হ্যা  এটা  বৈদ্যবাটি……

ব্যাস  !  আর  কোনো  কথা  মুখ  দিয়ে  বের  করতে  পারলো  না  শুভ  |  মেয়েটি  ঠোঁট  টিপে  ওর  দিকে  তাকিয়ে  হাসছে  |  ইতিমধ্যে  ট্রেনটাও  ছেড়ে  দিলো  |  মেয়েটি  তখনো  হেসে  চলেছে  |  লজ্জায়  কোনো  মতে  মুখ  খুলল  শুভ  –

তুমি উঠতে  পারতে  |  এটা  বৈদ্যবাটি…

দাঁড়াবে না  |  সোজা  ব্যান্ডেল,  নেক্সট  স্টপ  |  –  হাসি  থামিয়ে  কৌতূকের  সুরে  বলল  মেয়েটি  |

কোনো  একদিন  নিজেরই  বলা  কথাগুলো  হুবহু  একভাবে  মেয়েটির  থেকে  শুনে  শুভও  না  হেসে  থাকতে  পারলো  না  আর  |  তারপর  বলল  –

তা আজ  আবার  বৈদ্যবাটি  ?

নাহ, বাবার  ট্রান্সফার  হয়েছে  |  সি  অফ  করতে  এসেছিলাম  |

আচ্ছা আচ্ছা  |

তবু  পরিস্থিতিটা  যেন  ক্রমেই  অস্বস্তিকর  হয়ে  উঠছিলো  শুভর  কাছে  |  আমতা  আমতা  করে  বলল  –

লিসেন, আই  এম  রিয়েলি  সরি  !

ইটস্ অল  রাইট  !  ইউ  ওয়ের  রিয়েলি  ভেরি  হেল্পফুল  দ্যাট  ডে  !  বাই  দ্য  ওয়ে,  হাতে  সময়  আছে  এখন  ?

হ্যা সে  আছে,  কেন  ?

এখানে অটো  স্ট্যান্ডের  কাছে  একটা  কফি  শপ  খুলেছে  নতুন  |  শুনেছি  ভালোই  |

কয়েক  মুহূর্তের  নিঃশব্দতা  |  তারপর  কিছুক্ষন  মেয়েটির  দিকে  একদৃষ্টিতে  চেয়ে  থেকে  শুভ  বলল  –

থ্যাঙ্কস !

বাবা এতে  আবার  থ্যাঙ্কস  কেন  ?

না কিছু  না,  এমনিই  !

 

Tags: , ,

 

 

 




  • খোঁজ করুন




  • আমাদের ফেসবুক পেজ

  • মতামত

    আপনার মন্তব্য লিখুন

    আপনার ইমেল গোপনীয় থাকবে।




    Notify me when new comments are added.

    যোগাযোগ


    email:galpersamay@gmail.com

    Your message has been sent. Thank you!

    গল্পের সময় পরিবার
    সমীর
    অগ্নীশ্বর
    দেবাশিস
    চিন্ময়
    পার্থ
    মিতালি
    জাগরণ
    দেবব্রত

    © 2016 - 2022 গল্পের সময়। ডিজাইন করেছেন অগ্নীশ্বর। নামাঙ্কন করেছেন পার্থ